২১ মে ২০২২, শনিবার, ০৫:৩৪:২০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
গোয়াইনঘাট উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম আম্বিয়া কয়েছ এর পক্ষ থেকে ঈদ শুভেচ্ছা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবিরের ঈদ শুভেচ্ছা বাণী লুটপাট আর স্বার্থ হাসিলে ব্যস্ত চেয়ারম্যান আঃ রশিদ সওদাগর সংযোগ সড়ক না থাকায় কাজে আসছে না সেতুগুলো ইউক্রেন যুদ্ধের মধ্যেই রাশিয়ার ‘বন্ধু’ দেশকে ‘গোপনে’ এইচকিউ-২২ মিসাইল দিল চীন জাপানে আট দশক ধরে ইসলামের আলো ছড়াচ্ছে কোবের মসজিদ ২০৩০ সালে দুইবার আসবে পবিত্র রমজান গোতাবায়ার কার্যালয়ের সামনে স্থায়ী তাবু গেড়েছে বিক্ষোভকারীরা! জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর পূর্ণাঙ্গ ভাষণ মেডিকেলে চান্স পাওয়া সেই শিক্ষার্থীর দায়িত্ব নিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান


কর্মীর সঙ্গে ইমরান খানের দলের সংসদ সদস্যের ঘুষাঘুষি
অনলাইন ডেস্কঃ
  • আপডেট করা হয়েছে : ১৩-০৪-২০২২
কর্মীর সঙ্গে ইমরান খানের দলের সংসদ সদস্যের ঘুষাঘুষি


পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফের (পিটিআই) এক কর্মীর সঙ্গে দলটির এক পার্লামেন্ট সদস্যের মারপিটের ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার ইসলামাবাদের হোটেল মেরিয়টে ইফতারের সময় এই ঘটনা ঘটে।

বিবিসি উর্দু জানিয়েছে, ওই আইনপ্রণেতার নাম নুর আলম খান। তিনি পেশোয়ার থেকে পিটিআইয়ের মনোনয়নে নির্বাচিত হয়েছিলেন। ইমরান খানের বিরুদ্ধে আনা অনাস্থা ভোটে যে ২০ পিটিআই আইনপ্রণেতা দলের বিপক্ষে ভোট দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন নুর আলম তাদের একজন। 

খবরে বলা হয়, ঘটনার সময় ওই হোটেলে নুর আলম পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) নেতা নাদিম আফজাল চান, সিনেটর নওয়াজ খোখার এবং ফয়সাল করিম কুন্ডির সঙ্গে ইফতার করছিলেন। পিটিআই ওই কর্মী পশতু ভাষায় নুর আলমকে গালাগাল করেন। 

এ সময় তিনি পারিবারিক অনুষ্ঠানের কথা বলে ওই কর্মীকে ঝামেলা না করতে অনুরোধ করেন।  কিন্তু তাতেও না থেমে ক্রমাগতভাবে গালাগালি করতে থাকেন। এক পর্যায়ে নুর আলম ধৈর্য হারিয়ে ফেলেন এবং ওই কর্মীকে ঘুষি দিয়ে বসেন। পরে দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। এক পর্যায়ে পিপিপি নেতা খোখার এবং কুন্ডিও পিটিআই কর্মীকে মারধর করেন। 

নুর আলম ২০১৮ সালে পিটিআইয়ে যোগ দেন এবং নির্বাচন করে জিতে জাতীয় পরিষদের সদস্য হন। এর আগে তিনি পিপিপি দলের সদস্য ছিলেন। এ ঘটনায় ইসলামাবাদ ‍পুলিশের কাছে এখনও কোনো অভিযোগ দায়ের হয়নি। 

অনাস্থা প্রস্তাবের মাধ্যমে পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) চেয়ারম্যান ও সদ্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে ক্ষমতাচ্যুত করার পর গত ১১ এপ্রিল শাহবাজ শরিফ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন।

সোমবার প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনে ১৭৪ জন সদস্য শাহবাজ শরীফের পক্ষে ভোট দেন। বিপক্ষে কেউ ভোট দেননি কেউ।

এই ১৭৪ জন সদস্যই সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে অনাস্থা জানিয়ে  তাকে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরিয়ে দেয়।


শেয়ার করুন