০৭ জুলাই ২০২২, বৃহস্পতিবার, ০৯:৫৭:৪২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দেশবাসীকে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানালেন নবাব আলী হাসিব খান বানভাসি মানুষের পাশে মুগদা থানা ইমাম উলামা পরিষদের পক্ষ থেকে সেক্রেটারি মুফতি শফিকুল ইসলাম মাজহারীর নগদ অর্থ বিতরণ আদালত কর্তৃক উজ্জ্বল মিয়াজী হত্যা মামলার ৪ আসামির জামিন আবারও না মঞ্জুর ৩ জেলায় উজ্জ্বল মিয়াজী হত্যার বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ নৌ পুলিশ ও ডাকাতদলের মধ্যে গোলাগুলির আহত ৪, আটক ১ ব্যবসায়ী উজ্জ্বল মিয়াজী হত্যাকান্ডে জড়িতরা প্রশাসনের নাকের ডগায় প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে বাবলা ডাকাত ও কবিরখালাশীকে ধরিয়ে দিতে পারলে ২ লাখ টাকা পুরস্কার গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু নেই, শনাক্ত ২৯ গোয়াইনঘাট উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম আম্বিয়া কয়েছ এর পক্ষ থেকে ঈদ শুভেচ্ছা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবিরের ঈদ শুভেচ্ছা বাণী


সুঁই থেকে শুরু করে কাঁথা বালিশ চাদর কেনায় দুর্নীতি হচ্ছে: রিজভী
অনলাইন ডেস্কঃ
  • আপডেট করা হয়েছে : ১৩-০৪-২০২২
সুঁই থেকে শুরু করে কাঁথা বালিশ চাদর কেনায় দুর্নীতি হচ্ছে: রিজভী


বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, কেবল টিকা নয়, সুঁই কেনা থেকে শুরু করে কাঁথা বালিশ-চাদর কিংবা হাসপাতালের জানালার পর্দা কেনাকাটায় সরকারের লোকজন দুর্নীতিতে ডুবে গেছে। সেখানে বিদেশ থেকে কঠিন শর্তে প্রায় এক লাখ কোটি টাকা ঋণ এনে কথিত মেগা প্রকল্প করছে। 

বুধবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তিনি এ মন্তব্য করেন। 

রিজভী বলেন, এই প্রকল্পগুলো মূলত লুটপাটের খনি। দফায় দফায় ব্যয় বাড়ানো হচ্ছে। বর্তমানে একটি শিশু ৯৮ হাজার টাকা ঋণ মাথায় নিয়ে জন্মগ্রহণ করে, এখন সেটি বেড়ে দ্বিগুণ হয়ে গেছে। কারণ ইতোমধ্যে আরও ৬ বিলিয়ন ঋণ নেওয়া হয়েছে। 

তিনি বলেন, এই আওয়ামী লীগের হাতে দেশ এবং জনগণ নিরাপদ কিনা এ প্রশ্নটিই এখন বড় হয়ে দেখা দিয়েছে। যে দলের নেতারা রাজস্ব ব্যয় বাড়াতে ফেনসিডিল আমদানির সুপারিশ করে, এ সরকারের লোকজনের কথা শুনলে কিংকর্তব্যবিমূঢ় হতে হয়। 

বিশেষজ্ঞ অর্থনীতিবিদরা বলছেন, ঋণ নিয়ে শেখ হাসিনা শত শত মেগাপ্রকল্প খুলেছে। সবগুলোই হচ্ছে অপরিকল্পিতভাবে। বলা যায়-পুরো বাংলাদেশ এখন বিদেশিদের ঋণের জালে বন্দী। ফলে আমাদের সার্বভৌমত্বও বন্দি। এরপর মেগাদুনীতি, অর্থপাচার ও মূল্যস্ফিতিতে শ্রীলংকার চেয়ে বাংলাদেশের অবস্থা আরও খারাপ। এটি রীতিমতো উদ্বেগ, ভয় ও বিপদের কারণ হতে পারে। সরকার এখন শুধু চাপার জোরে টিকে আছে। যে কোনো সময় বায়বীয় অর্থনীতি ধসে পড়তে পারে।

শেয়ার করুন