২১ জানুয়ারী ২০২২, শুক্রবার, ০৫:২২:৫৩ পূর্বাহ্ন


অর্থনৈতিক উন্নয়নে নিরাপদ সড়ক জরুরি
স্টাফ রিপোর্টার মোঃ ফরিদ
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৯-০১-২০২২
অর্থনৈতিক উন্নয়নে নিরাপদ সড়ক জরুরি


ই নি, তারা বোধ হয় দূর থেকে এ ব্যথাটা সেভাবে অনুভব করতে পারি না। কিন্তু যার চলে যায়, সে-ই বোঝে আপনজন হারানোর বেদনা। বেঁচে থাকার তাগিদে নিজের ও পরিবারের সবার দুই বেলার আহার জোগাতে সকাল থেকেই শুরু হয় মানুষের কর্মব্যস্ততা। আর এই কর্মব্যস্ততার মধ্যেই ঘটে যায় নানা রকম অঘটন ও দুর্ঘটনা। নিরাপদ জীবনযাপনের ক্ষেত্রে সড়ক দুর্ঘটনা সার্বক্ষণিক হুমকি হিসেবে কাজ করে সাধারণ মানুষের মনে। বর্তমানে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। যার ফলে নির্বিবাদে প্রাণ হারাচ্ছে অসংখ্য মানুষ। তারপরও নেই সঠিক ব্যবস্থাপনা বা জনসচেতনতা। বাংলাদেশের সড়ক ব্যবস্থা আজও আন্তর্জাতিক মানের হয়ে না উঠার কারণে দুর্ঘটনার মাত্রা দিনদিন বেড়েই চলেছে। যার মাশুল দিতে হচ্ছে রাস্তায় চলাচলকারী জনসাধারণ কে। প্রতিটি ক্ষণই তাদের কে থাকতে হয় আতঙ্কে- এই বুঝি গাড়ি উঠে গেলো গায়ের ওপর! গাড়ি নেমে গেলে রাস্তার পাশে! এই বুঝি আর বাড়ি ফেরা হলো না! 

এক পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, সড়ক দুর্ঘটনার ফলে বছরে গড়ে বাংলাদেশের জিডিপির শতকরা দেড় ভাগ নষ্ট হয়, যার পরিমাণ প্রায় পাঁচ হাজার কোটি টাকা। বিগত ১৫ বছরে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে প্রায় ৫৫ হাজার মানুষ। আর দুর্ঘটনাজনিত মামলা হয়েছে প্রায় ৭৭ হাজার। এসব কারণে সড়ক দুর্ঘটনা এখন অন্যতম জাতীয় সমস্যা হিসেবে দেখা দিয়েছে। সঙ্গত কারণেই এ সমস্যা থেকে মানুষকে নিরাপদ রাখার সার্বিক পদক্ষেপ গ্রহণকে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখা জরুরি।

প্রতিদিনই সড়ক দুর্ঘটনা কেড়ে নিচ্ছে তরতাজা প্রাণ। মুহূর্তেই খালি করে দিচ্ছে কোনো না কোনো মায়ের কোল। অনেকেই আবার বেঁচে থাকছে পঙ্গু হয়ে। ভুগতে হচ্ছে সারা জীবন। তাই তো বলা হয়ে থাকে ‘একটি দুর্ঘটনা সারা জীবনের কান্না’। সড়ক দুর্ঘটনার প্রভাবে শুধু মানুষের মৃত্যু হচ্ছে তা কিন্তু নয় একই সাথে মানুষের শারীরিক, মানসিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক ক্ষেত্রেও ব্যাপক ক্ষতি হয়। দুর্ঘটনা যেভাবেই হোক না কেন, তার ফল সব সময় ভয়ঙ্কর হয়ে থাকে। মানবসম্পদের বিনাশ এই সড়ক দুর্ঘটনার সবচেয়ে বড় ক্ষতি। দুর্ঘটনা কবলিত একটি পরিবার দীর্ঘদিন ধরে অমানবিক কষ্ট ভোগ করে থাকে। তাদের এই ক্ষতি অপূরণীয়। অনেক ক্ষেত্রেই তা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয় না। আর যদি পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি এ রূপ দুর্ঘটনার শিকার হয়ে থাকে, তাহলে তার প্রভাব হয় আরও দীর্ঘমেয়াদী।

সড়ক দুর্ঘটনা বাংলাদেশে বর্তমানে প্রকট আকার ধারণ করেছে। তবে সড়ক দুর্ঘটনা কোনো বিশাল সমস্যা নয়- যদি আমরা প্রত্যেকে প্রয়োজনীয় নিয়মাবলী মেনে চলি এবং সড়ক দুর্ঘটনা এড়াতে অধিক সচেতন ও সতর্ক হই তাহলে তা সহজেই নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। 

ওয়ার্ল্ড হেলথ র‍্যাঙ্কিং অনুসারে, সবচেয়ে বেশি সড়ক দুর্ঘটনা কবলিত ১৮৩টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১০৬ তম।  ৬১.৯০ শতাংশ মৃত্যু হার নিয়ে সবচেয়ে অনিরাপদ রাস্তার তালিকায় শীর্ষস্থানে রয়েছে জিম্বাবুয়ে। তারপর যথাক্রমে রয়েছে লাইবেরিয়া, মালাউই, গাম্বিয়া ও টোগো। অন্যদিকে সবচেয়ে নিরাপদ সড়কের তালিকায় শীর্ষস্থানে রয়েছে সুইডেন। দেশটিতে সড়ক দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুর ২.৩১ শতাংশ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, সড়ক দুর্ঘটনার কারণে প্রতিবছর বিশ্বে ১৩ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়ে থাকে। এসব দুর্ঘটনায় বেশিরভাগ দেশের জিডিপির ৩ শতাংশ পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকে। তবে ৯৩ শতাংশ দুর্ঘটনাই ঘটছে স্বল্প ও মধ্য আয়ের দেশে, যেখানে রয়েছে বিশ্বের মোট সড়ক যানের ৬০ শতাংশ। বৈশ্বিকভাবে ঝুঁকিপূর্ণ সড়কের জন্য কুখ্যাত দেশগুলো হলো- থাইল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা, মালয়েশিয়া, ব্রাজিল, চীন, রাশিয়া, ভারত, কলম্বিয়া, ইন্দোনেশিয়া এবং পেরু। এই দেশগুলো দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যাতেও সবার চেয়ে এগিয়ে।

এদিকে, বিশ্বব্যাংকের (ডব্লিউবি) এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বের মোট যানবাহনের মাত্র ০.৫ শতাংশ মোটরযান বাংলাদেশের সড়ক বা মহাসড়কে চলাচল করে থাকে।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) এর অ্যাক্সিডেন্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটের মতে, গত দুই দশকে সড়ক দুর্ঘটনায় কমপক্ষে ৫৬ হাজার ৯৮৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। অর্থাৎ, গত ২০ বছরে প্রতিদিন গড়ে ৮ জনের প্রাণহানি হয়েছে। অ্যাক্সিডেন্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউট (এআরআই) জানিয়েছে, ৯০ শতাংশ দুর্ঘটনার জন্যই চালকরা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে দায়ী।

মহামারির কারণে ২০১৯ সালের চেয়ে ২০২০ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু ২১ শতাংশ কমেছে বলে জানায় এআরআই। মূলত করোনা সংক্রমণ রোধে দেশজুড়ে চলাচল ও পরিবহন নিষেধাজ্ঞার কারণেই এই হ্রাস। তবে একারণে মোট সংখ্যা কমলেও দুর্ঘটনার হার কমেনি বলে জানান এআরআই। নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের হিসেবে, গেল বছর সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ঘটেছে ঢাকা, চট্টগ্রাম এবং ময়মনসিংহে। আর সবচেয়ে কম হয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম, রাঙ্গামাটি, খাগরাছড়ি ও বান্দরবন জেলায়। পরিবহন খাত একটি দেশের  অর্থনীতির প্রাণভোমরা হলেও, আজো আমরা সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারিনি।

শেয়ার করুন