২১ জানুয়ারী ২০২২, শুক্রবার, ০৬:০৪:৩৬ পূর্বাহ্ন


শরীয়তপুরে গ্যাসের সন্ধান, ডিসেম্বরে শেষ হবে কূপ খনন
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৪-০১-২০২২
শরীয়তপুরে গ্যাসের সন্ধান, ডিসেম্বরে শেষ হবে কূপ খনন


পদ্মাপাড়ের জেলা শরীয়তপুরে প্রাকৃতিক গ্যাসের সন্ধান পাওয়া গেছে। গ্যাসের পরিমাণ অনুসন্ধান করতে একটি কূপ খনন করা হচ্ছে। বাণিজ্যিকভাবে লাভজনক পরিমাণে গ্যাসের মজুত পাওয়া গেলে এটিকে গ্যাসক্ষেত্র হিসেবে বিবেচনা করবে সরকার। দেশে তেল, গ্যাস ও খনিজ অনুসন্ধানে একমাত্র রাষ্ট্রীয় সংস্থা বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রডাকশন কোম্পানি লিমিটেড (বাপেক্স)।

পেট্রোবাংলা ও বাপেক্স সূত্র জানায়, শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার চামটা ইউনিয়নের দিনারা গ্রামে কূপ খননের কাজ শুরু করেছে। ভোলায় গ্যাস পাওয়ার পর নিকটবর্তী জেলা শরীয়তপুরের এই এলাকায়, নোয়াখালীর হাতিয়ায় এবং সুন্দরবনের নিকটবর্তী এলাকায় গ্যাস প্রাপ্তির সম্ভাবনা উজ্জ্বল বলে মনে করছেন ভূতাত্ত্বিকরা।

২০১৪-১৫ অর্থবছরে মেঘনা নদীর তীর শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার কুচাইপট্টি থেকে খুলনা পর্যন্ত বিশাল এলাকা জুড়ে দ্বিমাত্রিক ভূকম্প জরিপ (টুডি সিসমিক সার্ভে) করা হয়। ঐ জরিপে নড়িয়া উপজেলার চামটা ইউনিয়নের দিনারা গ্রামে ভূগর্ভে গ্যাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়। এরপর নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ ‘শরীয়তপুর তেল-গ্যাস অনুসন্ধান কূপ খনন প্রকল্প-১’ গ্রহণ করে। প্রকল্পটির দেড় বছর সময়কালের জন্য ৯৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়। গত বছরের জুলাই মাসে শুরু হওয়া কূপ খনন কাজ চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হবে। খনন শেষে প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণ ও মূল্যায়ন করা হবে। তাতে এই গ্যাসের মজুত বাণিজ্যিকভাবে উত্তোলনের উপযুক্ত হবে কি না, তা জানা যাবে। সব মিলিয়ে এ বছরের ডিসেম্বরে বা আগামী বছরের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

জেলা প্রশাসন জানায়, অনুসন্ধান কূপ খনন করার জন্য জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে ৬ দশমিক ৪৯ একর জমির হুকুম দখল নেওয়া হয়েছে। ঐ জমিতে থাকা ফসলের দুই বছরের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে।

বাপেক্সের মহাপরিচালক ও শরীয়তপুর তেল-গ্যাস অনুসন্ধান কূপ খনন প্রকল্প-১-এর পরিচালক (পিডি) মো. তোফায়েল উদ্দিন সিকদার বলেন, কূপ খননের মাধ্যমে গ্যাস পাওয়ার ব্যাপারে আমরা আশাবাদী। শিগিগরই ডিএসটি টেস্ট করা হবে। অনুসন্ধান সফল হলে মজুত থাকা গ্যাসের পরিমাণ সম্পর্কে বোঝা যাবে। 

দেশে প্রাকৃতিক গ্যাসের প্রমাণিত মজুত কমে আসছে। আবাসিকে নতুন গ্যাস সংযোগ দেওয়া বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। গ্যাস সংকটে বিদ্যুত্ উত্পাদন ব্যাহত হচ্ছে। জ্বালানি এবং স্থিতিশীল বিদ্যুতের অভাবে শিল্প উত্পাদনের গতিও ধীর। বিকল্প হিসেবে ব্যয়বহুল এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) আমদানি করা হচ্ছে তিন বছর ধরে। গ্যাস, তেল, কয়লা এবং এলপিজির আমদানি-নির্ভরতা বাড়ছে। এমন প্রেক্ষাপটে শরীয়তপুরে নতুন গ্যাস প্রাপ্তির সম্ভাবনা আশা তৈরি করছে জ্বালানি খাতে। 

বাংলাদেশ তৈল, গ্যাস ও খনিজ সম্পদ করপোরেশন (পেট্রোবাংলা) সূত্র জানায়, বর্তমানে দেশে ২৮টি গ্যাসক্ষেত্র রয়েছে। সবমিলিয়ে গ্যাসের প্রমাণিত ও সম্ভাব্য মজুতের পরিমাণ ১০ টিসিএফ বা ১০ লাখ কোটি ঘনফুট গ্যাস। দৈনিক গ্যাসের চাহিদা ৩৬৬ কোটি ঘনফুট। বার্ষিক গ্যাসের চাহিদা ১ লাখ ৩৪ হাজার কোটি ঘনফুট বা (১ দশমিক ৩৩ টিসিএফ) গ্যাস। এমন প্রেক্ষাপটে দেশজ গ্যাসের সঙ্গে আমদানিকৃত এলএনজির মিশিয়ে গ্রাহক পর্যায়ে বিতরণ করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে গ্যাসের প্রমাণিত মজুত যত দিন বেশি সম্ভব ধরে রাখতে চায় সরকার।

শেয়ার করুন