২১ জানুয়ারী ২০২২, শুক্রবার, ০৪:৪০:৫৬ পূর্বাহ্ন


এখনো বেশির ভাগ স্টলের নির্মাণকাজই শেষ হয়নি
স্টাফ রিপোর্টার মোঃ ফরিদ
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৩-০১-২০২২
এখনো বেশির ভাগ স্টলের নির্মাণকাজই শেষ হয়নি


বাণিজ্য মেলা শুরু হয়েছে আজ তিন দিন। কিন্তু এখনো বেশির ভাগ স্টলের নির্মাণকাজই শেষ হয়নি। কবে নাগাদ শেষ হবে তা-ও নির্দিষ্ট করে জানাতে পারেননি এসব স্টলের বরাদ্দপ্রাপ্তরা। তারা সময়মতো বরাদ্দ না পাওয়ায় স্টল নির্মাণে কিছুটা দেরি হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন। এছাড়া এবার বাণিজ্য মেলায় স্টলের সংখ্যা গতবারের তুলনায় কম বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। করোনা মহামারির কারণে এবার অনেক বিদেশি প্রতিষ্ঠানও মেলায় আসেনি।

গতকাল রবিবার সরেজমিনে বাণিজ্য মেলায় গিয়ে দেখা যায়, মেলার স্থায়ী কমপ্লেক্স বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারের ভেতরে অনেক স্টলের নির্মাণকাজ চলছে। আর এক্সিবিশন সেন্টারের বাইরের স্টলগুলোর অধিকাংশই এখনো সাজানো-গোছানো হয়নি। ফলে দর্শনার্থীরা যাতায়াতের এত ঝক্কিঝামেলা সহ্য করে মেলায় গিয়ে রীতিমতো হতাশ হচ্ছেন। উল্লেখ্য, এবারই প্রথম পূর্বাচলে নবনির্মিত স্থায়ী কমপ্লেক্সে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার (ডিআইটিএফ) আয়োজন করা হয়েছে। এর আগে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে মাসব্যাপী এ মেলা অনুষ্ঠিত হতো। তবে এখন থেকে পূর্বাচলেই বাণিজ্য মেলা অনুষ্ঠিত হবে।

নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে স্টল নির্মাণকাজ শেষ না হওয়া প্রসঙ্গে বিউটিশিয়া কসমেটিক্সের মালিক শফিকুল ইসলাম বলেন, গত ২৯ ডিসেম্বর বাণিজ্য মেলার দোকান বরাদ্দপত্র তিনি পেয়েছেন। আর ১ জানুয়ারি মেলা উদ্বোধন হয়েছে। দুই দিনের মধ্যে কীভাবে স্টল নির্মাণ সম্ভব। সময়মতো বরাদ্দপত্র না পাওয়ায় স্টল নির্মাণে বিলম্ব হয়েছে বলে তিনি জানান। শফিকুল বলেন, এখানে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) কর্মকর্তাদের সময়মতো পাওয়া যায় না। কোনো পরামর্শ, সুবিধা ও অসুবিধা ভাগাভাগি করার কেউ নেই। কবে নাগাদ তাদের স্টল উদ্বোধন করা হবে তিনি বলতে পারেননি। 

পোশাক বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান ড্রেসলাইনের পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আগামী দুই-তিন দিনের মধ্যে তাদের স্টল উদ্বোধন করা যাবে। চূড়ান্ত বরাদ্দপত্র সময়মতো না পাওয়ায় এ জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। হ্যান্ডিক্র্যাফটের পরিচালক রেজাউল করিম বলেন, মেলা বসার কমপক্ষে এক মাস আগেই স্টল বরাদ্দ চূড়ান্ত করতে হবে। অন্যথায় অব্যবস্থাপনা ও স্টল নির্মাণের খরচ বৃদ্ধিতে প্রতিষ্ঠানের মালিকরা ক্ষতির সম্মুখীন হবেন। আরেক পোশাক বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান প্রভিডেন্সের পরিচালক ফারদিন বলেন, যাতায়াতব্যবস্থা ভালো না থাকায় বাণিজ্য মেলায় দর্শনার্থীদের সমাগম এখনো সেভাবে ঘটেনি। নানা প্রতিকূলতায় তাদের স্টল নির্মাণে দেরি হচ্ছে। আগামীকাল মঙ্গলবার তাদের স্টল উদ্বোধন করা হবে বলে জানান তিনি।

গতকাল বাণিজ্য মেলা ঘুরে দেখা গেছে, হোমটেক্স, ইগ্লু, কাশ্মীরী শাল, হ্যান্ডিক্র্যাফট, জয়িতা, উদ্যোক্তা ও গাজী গ্রুপসহ অনেক প্রতিষ্ঠানের স্টল নির্মাণকাজ এখনো শেষ হয়নি। সময়মতো স্টলের বরাদ্দ না দেওয়া প্রসঙ্গে জানতে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্যকেন্দ্রে যোগাযোগ করলে সেখানে দুই জন নিরাপত্তা কর্মী ছাড়া কাউকেই পাওয়া যায়নি।

গতকাল রাজধানীর শান্তিনগর থেকে মেলায় ঘুরতে আসা আলমগীর হোসেন বলেন, মেলা উদ্বোধন হলেও এখনো স্টল নির্মাণই শেষ হয়নি। তাহলে মেলায় এসে কী লাভ হলো? এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এবারের মেলায় অন্যান্য বছরের তুলনায় কমসংখ্যক স্টল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, করোনা মহামারির কারণেই এবার মেলায় স্টলের সংখ্যা কমানো হয়েছে। একই কারণে গত বছর বাণিজ্য মেলা অনুষ্ঠিত হয়নি। ইপিবি জানিয়েছে, এবার মেলায় বিভিন্ন ক্যাটাগরির ২৩টি প্যাভিলিয়ন, ২৭টি মিনি প্যাভিলিয়ন, ১৬২টি স্টল এবং ১৫টি ফুড স্টল রয়েছে। এরমধ্যে তুরস্ক, ইরান, ভারত, পাকিস্তান, থাইল্যান্ডসহ বিদেশি প্রতিষ্ঠানের ১১টি স্টল রয়েছে।

শেয়ার করুন