২১ জানুয়ারী ২০২২, শুক্রবার, ০৪:৩৬:০৪ পূর্বাহ্ন


টানা বৃষ্টিতে ১৭ হাজার হেক্টর আলুখেত পানির নিচে
ভোরের ধ্বনি অনলাইন ডেক্স
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৭-১২-২০২১
টানা বৃষ্টিতে ১৭ হাজার হেক্টর আলুখেত পানির নিচে


দুই দিনের টানা বৃষ্টিতে মুন্সীগঞ্জের আলু চাষিদের মাথায় হাত। আলু খেতে পানি জমে প্রায় ৪২১ কোটি টাকার বিপুল ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ার লক্ষণ দেখা দিয়েছে। এর মধ্যে আলুর বীজ রোপণকৃত ১৭ হাজার হেক্টর কৃষিজমি প্লাবিত হয়েছে। পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করা হলেও ভারী বৃষ্টির কারণে পানি নিষ্কাশন সম্ভব হচ্ছে না। এতে করে হতাসাগ্রস্ত হয়ে পড়েছে জেলার হাজারো আলু চাষিরা। ধার দেনা করে রোপণকৃত আলু এখন বৃৃষ্টির পানিতে ডুবে যাচ্ছে এ দৃশ্য যেন চাষিদের বুকে ফেটে যাচ্ছে। জেলার বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখা গেছে মাত্র কয়েকদিন আগে এবং গত শুক্রবার পর্যন্ত যারা আলু রোপণ করেছে তাদের কৃষি জমিগুলোতে এখন বৃষ্টির পানি জমে আছে। টানা বৃষ্টির ফলে পানি সরতেও পারছে না। ফলে ইতিমধ্যে ১৭ হাজার হেক্টর জমি প্লাবিত হয়েছে। এতে করে বড়ধরনের ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে জেলার হাজারো আলু চাষিরা। ধারণা করা হচ্ছে এই মৌসুমে প্রায় ৪২১ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হতে পারে কৃষকদের। এমন অবস্থায় চরম দুশ্চিন্তায় পড়েছে কৃষকরা। সদর উপজেলার মাকাহাটি গ্রামের আবদুর রহমান নামের এক কৃষক জানান, বিগত দুই দিন আগে ধারদেনা করে আলু রোপণ করেছি যা এখন বৃষ্টির পানিতে ডুবে আছে। এই লোকসান কীভাবে পূরণ হবে তা বুঝতে পারছি না। মেঘনা পাড়ের বকচর এলাকার হৃদয় সরকার নামের এক আলু চাষি জানান, অতিরিক্ত মূল্যে সার বীজ কিনে আলু রোপণ করেছি বর্তমানে রোপণকৃত আলু এখন ১ ফুট পানির নিচে। রোপণকৃত স ব আলু নষ্ট হয়ে গেছে। এতে করে আর্থিকভাবে লোকসানে পড়তে হবে। ৪২১ কোটি টাকার লোকসান হতে পারে জানিয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক খুরশেদ আলম বলেন, টানা দুই দিনের বৃষ্টি বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়তে পারে জেলার ছয় উপজেলার হাজারো কৃষক। ইতিমধ্যে জেলার রোপণকৃত প্রায় ১৭ হাজার হেক্টর আলুর জমি প্লাবিত হয়েছে।

শেয়ার করুন