০৪ ডিসেম্বর ২০২১, শনিবার, ১১:১৮:১০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
জুতার ভেতরে যেভাবে পাচার হচ্ছিলো ২০০ ভরি সোনা ভাণ্ডারিয়ায় নিখোঁজ স্কুলছাত্রের মরদেহ উদ্ধার, আটক ৩ জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে নীলফামারীতে একটি বাড়ি ঘিরে রেখেছে র‍্যাব আপনার খাদ্যাভ্যাসেই চুল হবে সুন্দর লটারি জিতে ভারতের সাংবাদিকদের সংসদে ঢুকতে হচ্ছে টেকনাফে সাড়ে সাত হাজার পিস ইয়াবাসহ রোহিঙ্গা আটক চাঁদাবাজির শীর্ষে ঢাকা সিটি মুগদা সবুজবাগ মিরপুর মোহাম্মদপুরসহ সবখানে বাড়ি করতে দিতে হয় সরকারি দলকে নগদ টাকা নির্মাণসামগ্রী কিনতে হয় তাদের কাছ থেকেই, নেতাদের অভিযোগ করে লাভ হয় না, ভাগ পান সবাই কর্মজীবী বাবা মায়ের শিশুর প্রতি যত্ন টেকনাফে র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ১ ৩১ জানুয়ারির মধ্যে সব নির্বাচন শেষ করবে ইসি


শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা : পুনর্বিচার চেয়ে আদালতে আবেদন রাষ্ট্রপক্ষের
স্টাফ রিপোর্টার: এ কে আনোয়ার
  • আপডেট করা হয়েছে : ২৪-১১-২০২১
শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা : পুনর্বিচার চেয়ে আদালতে আবেদন রাষ্ট্রপক্ষের


বরিশালের গৌরনদীতে ২০০৪ সালে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলার মামলাটি পুনরুজ্জীবিত করার জন্য আদালতে আবেদন করা হয়েছে। 

বরিশাল জেলা পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এ কে এম জাহাঙ্গীর মঙ্গলবার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে এ আবেদন করেন। তিনি আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগের সলিসিটর অনু বিভাগের ফৌজদারী শাখার অনুমোদন সাপেক্ষে এই আপিল  করেন।

জেলা জজ আদালত আপিল আবেদনটি গ্রহণ করে আগামী ৩০ নভেম্বর আসামিদের হাজির হওয়ার সমন জারির নির্দেশ দেন। নিম্ন আদালতের রায়ে শেখ হাসিনার গাড়ি বহরে হামলা মামলায় ন্যায় বিচার না পাওয়ায় এবার জেলা জজ আদালতে ন্যায় বিচার পাওয়ার আশা করেন আওয়ামী লীগের আইনজীবীরা। 

আপিলের বিবরণীতে জানা যায়, তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনার বরিশাল সফর উপলক্ষ্যে ২০০৪ সালের পহেলা এপ্রিল জেলার গৌরনদীতে একটি মঞ্চ তৈরি করে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। এসময় স্থানীয় বিএনপির নেতাকর্মীরা ওই মঞ্চে হামলা চালিয়ে নুরুল হক নামে একজনকে কুপিয়ে-পিটিয়ে আহত করে। পরদিন ২ এপ্রিল সকালে আওয়ামী লীগের মিছিলে হামলা চালিয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন আহ্বায়ক কালিয়া দমন গুহকে মারধর করেন তারা। ওইদিন শেখ হাসিনার গাড়ি বহর গৌরনদীতে পৌঁছলে বিএনপি নেতাকর্মীরা তার গাড়ি বহরে হামলা চালায়। রাষ্ট্র ক্ষমতার পরিবর্তন ঘটলে এ ঘটনায় ২০০৯ সালের ২০ জুলাই বিএনপির ৪৬ জনকে আসামি করে গৌরনদী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন ওই হামলায় আহত নুরুল হক। 

পরে ২০১১ সালে ৩০ এপ্রিল ৪০ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে এই মামলার অভিযোগপত্র দেন গৌরনদী থানার উপ-পরিদর্শক আসাদুল হক। ২০১৩ সালের ১৯ মে ১৬ জনকে অভিযুক্ত করে এবং ২৪ জনকে অব্যাহতি দিয়ে এই মামলার অভিযোগ গঠন করেন বিচার আদালত। পরে আদালতে ২৫ জন সাক্ষীর মধ্যে মাত্র ৬ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে অভিযোগ প্রমাণিত না হাওয়ায় ২০১৮ সালের ৫ আগস্ট অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. শিহাবুল ইসলাম অভিযুক্ত ১৬ আসামির সকলকে বেকসুর খালাস দেন।

এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার জন্য গত ৮ নভেম্বর অনুমোদন দেন আইন মন্ত্রণালয়ের সলিসিটর। এরপর গতকাল আপিল দায়ের করা হয়। আপিলে নিম্ন আদালতের রায় বাতিল করে সকল সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ পূর্বক আসামিদের সংশ্লিষ্ট ধারায় সাজা প্রদানের আবেদন জানানো হয়। 

জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট একেএম জাহাঙ্গীর জানান, রাষ্ট্রপক্ষের আপিল আবেদন গ্রহণ করে জেলা ও দায়রা জজ আদালত আগামী ৩০ নভেম্বর এই মামলার ধার্য্য তারিখে সকল আসামিকে হাজির হওয়ার জন্য সমন জারির নির্দেশ দিয়েছেন। 

নিম্ন আদালতে এই মামলার ন্যায় বিচার হয়নি বলে মনে করেন জেলা আইনজীবী সমিতির সম্পাদক অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম খোকন। জেলা জজ আদালতে এবার মামলাটির ন্যায় বিচার পাওয়ার আশা করেন তিনি। উল্লেখ্য, বিএনপির সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক সংসদ সদস্য জহির উদ্দিন স্বপনসহ গৌরনদী বিএনপির পদবীধারী নেতারা এই মামলার আসামি।

শেয়ার করুন