০৪ ডিসেম্বর ২০২১, শনিবার, ১০:২৪:১২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আপনার খাদ্যাভ্যাসেই চুল হবে সুন্দর লটারি জিতে ভারতের সাংবাদিকদের সংসদে ঢুকতে হচ্ছে টেকনাফে সাড়ে সাত হাজার পিস ইয়াবাসহ রোহিঙ্গা আটক চাঁদাবাজির শীর্ষে ঢাকা সিটি মুগদা সবুজবাগ মিরপুর মোহাম্মদপুরসহ সবখানে বাড়ি করতে দিতে হয় সরকারি দলকে নগদ টাকা নির্মাণসামগ্রী কিনতে হয় তাদের কাছ থেকেই, নেতাদের অভিযোগ করে লাভ হয় না, ভাগ পান সবাই কর্মজীবী বাবা মায়ের শিশুর প্রতি যত্ন টেকনাফে র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ১ ৩১ জানুয়ারির মধ্যে সব নির্বাচন শেষ করবে ইসি নাফনদীতে বিজিবির অভিযানে ৬০ হাজার ইয়াবাসহ আটক ১ মেয়র আব্বাসের বিরুদ্ধে ১০ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ করোনা আরও ৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৬১


সিলেটজুড়ে মণিপুরিদের ঐতিহ্যবাহী মহারাসলীলা উৎসব
স্টাফ রিপোর্টার: এ কে আনোয়ার
  • আপডেট করা হয়েছে : ২২-১১-২০২১
সিলেটজুড়ে মণিপুরিদের ঐতিহ্যবাহী মহারাসলীলা উৎসব


ভগবান কৃষ্ণের শৈশবের রাখাল নাট্যনৃত্য ও মধ্যরাতের রাসমণ্ডলীর গোপীগণের বৃত্তে কৃষ্ণের মহারাসনৃত্যের মধ্য দিয়ে সিলেট বিভাগজুড়ে সম্পন্ন হয়েছে মণিপুরিদের ঐতিহাসিক মহারাসলীলা উৎসব। গত শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) ছিলো কার্তিক মাসের মহা পূর্ণিমা। আর ঐ দিনকে ঘিরে মণিপুরি সম্প্রদায়ের সকল জনগোষ্ঠী মহারাসলীলা উৎসব মেতে উঠে। শিশু বয়সের মণিপুরি পুত্র-কন্যা ও যুবক যুবতিগণ কৃষ্ণের মহারাসলীলায় অংশগ্রহণ করেন।

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যে পূর্ণ মহারাসলীলা উৎসবকে একবার দেখতে দেশ-বিদেশের নানাপ্রান্তের ভক্তবৃন্দ ও পর্যটকেরা ছুটে আসে দলে দলে বিভিন্ন স্থানের মহারাসলীলার মন্দিরে। এ সময় কমলগঞ্জ ও সিলেটের আয়োজকেরা আলোচনা সভা ও মণিপুরি ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন। পরে বিকেল থেকে শুরু হওয়া কৃষ্ণের শৈশবের রাখাল নাট্যনৃত্য শেষ হয় গোধূলি লগ্নে। এরপর মধ্যরাতে সুসজ্জিত রাসমণ্ডলীতে গোপীগণের নৃত্যের বৃত্তে রাতভর চলে ভগবান কৃষ্ণের মহারাসলীলা নৃত্য।

এবারও মহারাসলীলার উৎসবকে কেন্দ্র করে ছোট-বড় হরেক ধরনের মেলার পসরা সজ্জিত ছিলো। যদিও মহামারি করোনায় গত বছর সীমিত পরিসরে ছিলো। কিন্তু এবার উদযাপিত মহারাসলীলা স্বাভাবিক অবস্থায় পূর্ণাঙ্গ ছিলো, যেখানে কৃষ্ণের নৃত্যে অংশগ্রহণ করেন প্রায় ৬০ জন শিল্পী। 

সরেজমিনে দেখা যায়, সিলেট সদরের মণিপুরি রাজবাড়ি, মৌলভীবার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার জোড়া মণ্ডপ, উত্তর মণ্ডপ ও দক্ষিণ মণ্ডপ মহারাসলীলা উৎসবে দেশ বিদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ভক্তবৃন্দ ও দর্শনার্থীরা রাসলীলা উপভোগ করতে আসে। এর মধ্যে মণিপুরি সম্প্রদায়ের জনগোষ্ঠীর মেয়েরা ওদের ঐতিহ্যবাহী পোশাক ফানেক-ইনাফি পরিধান করেন আর পুরুষেরা সাধারণ পোশাক ছাড়াও ধুতি-পাঞ্জাবি পরিধান করতে দেখা যায়। সুসজ্জিত মণ্ডলীতে নানা রঙের রংগুলিতে নিপুণ আলপনায় সজ্জিত করা হয়েছে আলোক সজ্জা। এর মধ্যে পরিবেশন করা হয় মণিপুরি ধর্মাবলম্বীদের মহারাসলীলা। মহারাসলীলায় অংশগ্রহণকৃত বালক শিল্পীরা কৃষ্ণ সাজে সজ্জিত হয় ধুতি পরিধান করে হাতে বাঁশি নিয়ে, অপরদিকে গোপীগণ রাধার সাজে সজ্জিত হয় পলয় ও মাথায় মুখ ঢাকার সাদা পর্দার ওড়না দিয়ে। এ সময় সংশ্লিষ্ট শিল্পীবৃন্দ  ধর্মীয় গান, মন্দিরা ও ঢোল বাজাতে থাকে। মহারাসলীলায় মুগ্ধ হয়ে উপস্থিতি ভক্তবৃন্দরা বাতাসা ছিটিয়ে দেয় আর অনেকে  টাকা-পয়সাও  বিলিয়ে দেয় নৃত্যশিল্পীদের মাঝে।

জানা যায়, ১৭৬৩-১৭৯৮ খ্রিস্টাব্দে মণিপুরি রাসনৃত্যেও সূচনা করেন পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে মণিপুরের মণিপুরি রাজা ভাগ্যচন্দ্র। তিনি মণিপুরে মণিপুরিদের প্রাচীনকালের প্রচলিত মূল ধারা ধর্মীয় উৎসব লাইহারাওরা ছাড়াও বিভিন্ন উৎসব-পার্বণে কৌশল অবলম্বন করেন ভাগবত পুরাণ কাহিনী ও শ্রীরাধা-কৃষ্ণের লীলাকে মিশ্রিত করেন নানাবিধ মুদ্রা প্রয়োগ করে। সেখান থেকেই ভগবান  শ্রীরাধা-কৃষ্ণের ঐশ্বরিক লীলাভিত্তিক মণিপুরি রাসনৃত্য সৃষ্টি হয়। 

পরবর্তীতে ১৭৭৯খ্রিষ্টাব্দের কার্তিক পূর্ণিমাতে মণিপুরের শ্রীগোবিন্দজীর মন্দিরে প্রথম রাসলীলা নিবেদন করেন রাজা ভাগ্যচন্দ্র। সিলেটের শহরের বাসিন্দা মণিপুরি কবি একে শেরাম এর মতে, মণিপুরি রাজা ভাগ্যচন্দ্র ছিলো খুব বুন্ধিমান। তিনি এই রাসনৃত্য আবিষ্কার করেছিলেন মণিপুরি ধর্মের মূল উৎসব লাইহারাওবা সাথে মিশ্রিত করে কৃষ্ণনিত্যকে। তার এই আবিষ্কৃত কৃষ্ণের রাসনৃত্য পরবর্তীতে বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে পড়ে। সেই ধারাবাহিকতায় আজও মহারাসলীলা উদযাপিত হচ্ছে কার্তিক মাসের পূর্ণিমার দিনে। 

ভারতের মণিপুর আর বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্তে মণিপুরি সম্প্রদায়ের জনগোষ্ঠীরা খুব ঘটা করে ভবগান শ্রীকৃষ্ণের মহারাসলীলা উদযাপন করে থাকেন। একই প্রসঙ্গে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শিববাজার, মাধপপুর ও কমলগঞ্জের মহারাসলীলা সেবা সংঘের সাধারণ সম্পাদক সেন সিংহ প্রতিবেদককে বলেন, মহারাসলীলা মণিপুরিদের শ্রীকষ্ণের ধর্মীয় অনুষ্ঠান। এ অনুষ্ঠানের জন্য একমাস কিংবা ১৫/২০ দিন আগ থেকে রাসনৃত্যের অংশগ্রহণকৃত শিল্পীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এর সাথে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কয়েকদিন আগে আগত শিল্পীদের জন্য থাকা-খাওয়া ব্যবস্থা করা হয়। যদিও গত বছর আয়োজন করা হয়েছিলো মহামারি করোনার জন্য সীমিত পরিসরে। এবার বরাবরের মতো স্বাভাবিক অবস্থায় মহারাসলীলা আয়োজন করা হয়েছে। আর মণিপুরিদের সমৃদ্ধশীল মহারাসলীলা  প্রকার ভেদের বিভিন্নভাবে বিভক্ত অনুষ্ঠান গেল শুক্রবার দিন থেকে শুরু হয়ে শনিবার(২১ নভেম্বর) ভোরে শেষ হয়। হাজারো ভক্তবৃন্দ ও পর্যটকেরা আসে এই উৎসবকে

শেয়ার করুন