০৪ ডিসেম্বর ২০২১, শনিবার, ১১:০৬:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে নীলফামারীতে একটি বাড়ি ঘিরে রেখেছে র‍্যাব আপনার খাদ্যাভ্যাসেই চুল হবে সুন্দর লটারি জিতে ভারতের সাংবাদিকদের সংসদে ঢুকতে হচ্ছে টেকনাফে সাড়ে সাত হাজার পিস ইয়াবাসহ রোহিঙ্গা আটক চাঁদাবাজির শীর্ষে ঢাকা সিটি মুগদা সবুজবাগ মিরপুর মোহাম্মদপুরসহ সবখানে বাড়ি করতে দিতে হয় সরকারি দলকে নগদ টাকা নির্মাণসামগ্রী কিনতে হয় তাদের কাছ থেকেই, নেতাদের অভিযোগ করে লাভ হয় না, ভাগ পান সবাই কর্মজীবী বাবা মায়ের শিশুর প্রতি যত্ন টেকনাফে র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ১ ৩১ জানুয়ারির মধ্যে সব নির্বাচন শেষ করবে ইসি নাফনদীতে বিজিবির অভিযানে ৬০ হাজার ইয়াবাসহ আটক ১ মেয়র আব্বাসের বিরুদ্ধে ১০ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ


আলু যখন গলার কাঁটা
ভোরের ধ্বনি অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট করা হয়েছে : ১০-১১-২০২১
আলু যখন গলার কাঁটা


আলুর মৌসুমের সময় চলছিল লকডাউন। সে সময় দামও ছিল কম। আলু চাষিরা লাভের আশায় হিমাগারে ৯৪ লাখ বস্তা আলু মজুদ করেছিলেন। এখন রাজশাহীর হিমাগারগুলোয় ৬০ লাখ বস্তা আলু আছে। কিন্তু সেই লাভের আশা ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাজশাহীর মাঠে মূলত কার্ডিনাল, ডায়মন্ড ও অ্যাস্টেরিক জাতের আলু বেশি চাষ হয়। এসবের ফলনও বেশি। এ আলু এক বছরের বেশি হিমাগারে রাখাও সম্ভব নয়। তার ওপর আরেকটি আবাদ মৌসুম আসন্ন। এখন হিমাগার মালিকরা আলু সরিয়ে নেওয়ার জন্য তাগাদা দিচ্ছেন। ফলে কয়েক হাজার আলু চাষি মজুদ আলু নিয়ে বিপদে। রাজশাহীর আলু চাষিরা জানিয়েছেন, মৌসুমে কম দামের কারণে হিমাগার ভাড়া করে আলু রাখা হয়। হিমাগার থেকে আলু ছাড়িয়ে বাজারে বিক্রি করার সাহস পাচ্ছেন না। এবার বিপুল ক্ষতির মুখে পড়ে যাচ্ছেন। দাম কমে যাওয়ায় হিমাগার ভাড়ার টাকাও পরিশোধ করতে পারছেন না। রাজশাহীর কয়েক হাজার আলু চাষি অর্থ সংকটে মৌসুমে আবাদ করতে পারবেন কি না তা-ও অনিশ্চিত। রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ জানিয়েছে, গত মৌসুমে রাজশাহীতে ৩৯ হাজার ৬২৯ হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ হয়। মৌসুম ভালো থাকায় আলুর ফলন হয়েছিল ৯ লাখ ৭৫ হাজার টন। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে প্রতি মৌসুমের মতো গত মৌসুমেও চাষিরা রাজশাহীর ৩৭ হিমাগারে ৯৪ লাখ বস্তা আলু মজুদ রেখেছিলেন। করোনা মহামারীর কারণে বছরের অধিকাংশ সময় হাটবাজার, হোটেল-রেস্তোরাঁ ও সামাজিক-রাজনৈতিক অনুষ্ঠান বন্ধ ছিল। ফলে রাজশাহী থেকে রাজধানী ঢাকাসহ অন্য জেলাগুলোয় আলু যায়নি। ফলে মজুদ আলুর বেশির ভাগই হিমাগারে পড়ে আছে। মজুদ আলু নিয়ে হিমাগার মালিকরাও বিপাকে আছেন বলে জানিয়েছেন রাজশাহী কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আবু বাক্কার। তিনি বলেন, ‘স্থান ও এলাকাভেদে খুচরা বাজারে আলু প্রতি কেজি ২২ থেকে ২৫ টাকায় বিক্রি হলেও পাইকারি বাজারে দাম মাত্র ১২-১৩ টাকা।  ফলে চাষিরা বিপুল পরিমাণ ক্ষতির মুখে পড়েছেন। বিপুল পরিমাণ মজুদ আলু নিয়ে হিমাগার মালিকরাও বিপাকে।

কারণ আগামী এক মাসের মধ্যে হিমাগার খালি করতে হবে। এখনো হিমাগারগুলোয় ৬০ লাখের বেশি বস্তা আলু মজুদ আছে।’ রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক কে জে এম আবদুল আউয়াল বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতির কারণে লাগাতার লকডাউনসহ নানা সমস্যায় বাজারে আলু বিক্রি কমেছে। এ বছর চাষিরা বেশি লাভের মুখ দেখবেন না।’

শেয়ার করুন