০৪ ডিসেম্বর ২০২১, শনিবার, ১০:৩১:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আপনার খাদ্যাভ্যাসেই চুল হবে সুন্দর লটারি জিতে ভারতের সাংবাদিকদের সংসদে ঢুকতে হচ্ছে টেকনাফে সাড়ে সাত হাজার পিস ইয়াবাসহ রোহিঙ্গা আটক চাঁদাবাজির শীর্ষে ঢাকা সিটি মুগদা সবুজবাগ মিরপুর মোহাম্মদপুরসহ সবখানে বাড়ি করতে দিতে হয় সরকারি দলকে নগদ টাকা নির্মাণসামগ্রী কিনতে হয় তাদের কাছ থেকেই, নেতাদের অভিযোগ করে লাভ হয় না, ভাগ পান সবাই কর্মজীবী বাবা মায়ের শিশুর প্রতি যত্ন টেকনাফে র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ১ ৩১ জানুয়ারির মধ্যে সব নির্বাচন শেষ করবে ইসি নাফনদীতে বিজিবির অভিযানে ৬০ হাজার ইয়াবাসহ আটক ১ মেয়র আব্বাসের বিরুদ্ধে ১০ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ করোনা আরও ৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৬১


বগুড়ায় মরিচ চাষে ব্যস্ত চাষিরা
ভোরের ধ্বনি অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট করা হয়েছে : ১০-১১-২০২১
বগুড়ায় মরিচ চাষে ব্যস্ত চাষিরা


বগুড়া সারিয়াকান্দির যমুনার চরগুলোতে নানা ধরনের সবজি চাষের পর নতুন করে সাজতে শুরু করেছে। যমুনা নদীর চরে দীর্ঘদিন বন্যার পানিতে নিমজ্জিত থাকা চরগুলোতে চাষ হচ্ছে গাইঞ্জা ধান, পিঁয়াজ, শাক, লাউসহ নানা ধরনের সবজি। 

চাষের পর ফলন নিয়ে যমুনা নদীর চরের কৃষকরা চাষ এবং বাজারজাতকরণে ব্যস্ত সময় পার করছেন। চরে এবার সবচেয়ে বেশি চাষ হয়েছে হাইব্রিড মরিচ। দীর্ঘ সময় ফলন এবং বাজারে সারাবছর চাহিদা থাকায় এই জাতের মরিচ চাষ করে লাভবান হচ্ছেন চাষিরা।

বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলার ভেলাবাড়ী ইউনিয়নের জোড়গাছা গ্রামের সুলতান আলী জানান, উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা শফিউল আলমের পরামর্শে গত বছর চরের প্রায় ২২ শতক জমিতে চাষের পর থেকে দুই লাখ ১৬ হাজার টাকার হাইব্রিড মরিচ বিক্রি করেন। এ বছর ওই জমিসহ সর্বমোট ৬২ শতক জমিতে হাইব্রিড মরিচ চাষ করেছেন। এরমধ্যে ২২ শতকের জমি থেকে প্রথম তোলায় ৪ মণ, দ্বিতীয় তোলায় ৬ মণ এবং তৃতীয় তোলায় ১৩ মণ মরিচ পাওয়া গেছে। ৪০ শতকের জমি থেকে প্রথম তোলায় ৭ মণ, দ্বিতীয় তোলায় ১২ মণ এবং তৃতীয় তোলায় ১৮ মণ মরিচ পেয়েছেন। প্রায় ১১ থেকে ১২ দিন পর পর জমি থেকে মরিচ তুলে থাকেন। ফুলবাড়ী হাটে সাদা মরিচ ২ হাজার ৮০০ টাকা মণ এবং কালো মরিচ ৩ হাজার ২৫০ টাকা মণ দরে বিক্রি হয়েছে। পৌষ মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত জমি থেকে মরিচ উত্তোলন করা যাবে।

সারিয়াকান্দি উপজেলার কাজলা ইউনিয়নের জামথল চরের মরিচ চাষি জবেদ আলী জানান, তিনি এ বছর ১৮ বিঘা জমিতে হাইব্রিড মরিচের চাষ করেছেন। এ পর্যন্ত ৭ মণ মরিচ বিক্রি করেছেন। প্রতিকেজি ৬০ টাকা করে বিক্রি করেছেন। তিনি আশা করছেন আগামী জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত জমি থেকে মরিচ তুলতে পারবেন। 

সারিয়াকান্দি উপজেলা কৃষি কার্যালয়ের সূত্রে জানা যায়, চরের জমিতে পলি পড়ে চাষের উপযোগি হয়ে যায় জমিগুলো। উপজেলার সব এলাকাতেই মরিচ চাষ হলেও চরাঞ্চলগুলোতে অপেক্ষাকৃত বেশি পরিমাণে হয়। চরাঞ্চলগুলোর মধ্যে চালুয়াবাড়ী, হাটবাড়ী, ফাজিলপুর, তেলীগাড়ী, গওলাডাঙ্গা, মানিকদাইড়, আউচারপাড়া, কাকালিহাটা, সবুজের পাড়া, চকরথিনাথ, দিঘাপাড়া, করনজাপাড়া, বনরপাড়া, কাজলা,  জামথল, পাকুরিয়া, উত্তর টেংরাকুরা, চরঘাগুয়া, নব্বইয়ের চর, কটাপুর, বেড়া পাঁচবাড়িয়া, কুড়িপাড়া, বাওইটোনা, উত্তর বেনিপুর, দক্ষিণ বেনিপুর, চরবাটিয়া, চিলাপাড়া, চরপাড়া, মথুরাপাড়া, ইন্দুরমারা, ডাকাত মারা, মূলবাড়ী, ধারাবর্ষা, শংকরপুর, কমরপুর, মাঝবাড়ী, মাঝিয়া, হাতিয়াবাড়ী এবং পৌতিবাড়ী চরে হাইব্রিড মরিচের গাছগুলো সতেজভাবে বেড়ে উঠছে, ফুল এসেছে এবং মরিচ ধরেছে। গত বছরে হাইব্রিড মরিচের ফলন হয়েছিল প্রতি হেক্টরে শুকনা আকারে ২.৪ মেট্রিক টন। 

সারিয়াকান্দি কৃষি কার্যালয় বলছে,  এ অর্থবছরে সর্বমোট মরিচ চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৩ হাজার ৭৫০ হেক্টর। উপজেলায় সর্বমোট ৩ হাজার ৬২০ হেক্টর জমিতে মরিচ চাষ হয়েছে। এর মধ্যে হাইব্রিড মরিচের লক্ষ্যমাত্রা ছিল মাত্র ৮০০ হেক্টর যা লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে ১ হাজার ৭৩৫ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে। উফসি জাতের মরিচের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ হাজার ৯৫০ হেক্টর যা কমে ১ হাজার ৮৮৫ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে। 

বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আব্দুল হালিম বলেন, গত কয়েক বছর ধরে হাইব্রিড মরিচের ভাল ফলন এবং দাম পাওয়ায় কৃষকরা এ জাতের মরিচ চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে। মরিচ ছাড়াও স্থানীয় চাষিরা চরে গাইঞ্জা ধান, মুলা, পেঁয়াজ, শাক, লাউসহ নানা ধরনের সবজি চাষ করেছে।

শেয়ার করুন