০৪ ডিসেম্বর ২০২১, শনিবার, ১০:৩৮:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আপনার খাদ্যাভ্যাসেই চুল হবে সুন্দর লটারি জিতে ভারতের সাংবাদিকদের সংসদে ঢুকতে হচ্ছে টেকনাফে সাড়ে সাত হাজার পিস ইয়াবাসহ রোহিঙ্গা আটক চাঁদাবাজির শীর্ষে ঢাকা সিটি মুগদা সবুজবাগ মিরপুর মোহাম্মদপুরসহ সবখানে বাড়ি করতে দিতে হয় সরকারি দলকে নগদ টাকা নির্মাণসামগ্রী কিনতে হয় তাদের কাছ থেকেই, নেতাদের অভিযোগ করে লাভ হয় না, ভাগ পান সবাই কর্মজীবী বাবা মায়ের শিশুর প্রতি যত্ন টেকনাফে র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ১ ৩১ জানুয়ারির মধ্যে সব নির্বাচন শেষ করবে ইসি নাফনদীতে বিজিবির অভিযানে ৬০ হাজার ইয়াবাসহ আটক ১ মেয়র আব্বাসের বিরুদ্ধে ১০ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ করোনা আরও ৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৬১


শখের কবুতর খামারে লাখ টাকা আয়
ভোরের ধ্বনি অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৩-১১-২০২১
শখের কবুতর খামারে লাখ টাকা আয়


শখ করেই কবুতর পালনে নেমেছিলেন আবু সাইদ। শেষ পর্যন্ত সে শখ থেকে হয়েছে কবুতরের খামার। আবার খামার থেকে এখন মাসিক আয় কম করেও ১ লাখ টাকা। কবুতরকে বলা হয় শান্তি-সুখের প্রতীক। সত্যিই সে কবুতর শান্তি আর সুখ এনে দিয়েছে নাটোরের সিংড়া উপজেলার আদিমপুর গ্রামের ৭০ বছর বয়সী আবু সাইদের জীবনে।

শুরুটা ১০ জোড়া কবুতর দিয়ে হলেও এখন আবু সাইদের কবুতরের সংখ্যা ৩৫০ জোড়া ছাড়িয়ে গেছে। পাঁচ বছর আগে শুরু করা শখে কবুতর পালন এখন আর শখে সীমাবদ্ধ নেই, পরিণত হয়েছে পেশায়। তাঁর খামারে রয়েছে ইন্ডিয়ান ফান্টেল, লাহোর কালো, হলুদ, তুরিবাজ লাল, কালো, এলমন্ড, ইন্ডিয়ান লোটন, দেশি লোটন, বাঁশিরাজ কোকা, মাক্সি রেচার হুমা, সবজে গিরিবাজ, লাল, সাদা, হলুদ বোম্বাই, আমেরিকান সো কিং, কালদম, মুক্ষি লাল, হলুদ, কালো, সিলভার, কফি, ঝরনা শাটিন, ল্যাভেন্ডার সুয়া চন্দন, শেকড়সহ ৩০ প্রজাতির কবুতর। খামার থেকেই বেশি কবুতর বিক্রি হয়। এছাড়া ঢাকা, গাজীপুর, রাজশাহী, বগুড়া, পাবনা, সিরাজগঞ্জ থেকে বিভিন্ন ব্যবসায়ী ও খামারি এসে কবুতর কিনে নিয়ে যান। খামারে কবুতরের সর্বনিম্ন দাম ৩ হাজার টাকা জোড়া আর সর্বোচ্চ ৪০ হাজার টাকা। 

আবু সাইদের খামার দেখে উদ্বুদ্ধ হয়ে খামার করেছেন একই গ্রামের আবুল হাশেম, পাশের গ্রাম বিয়াশের উজ্জ্বল, সাইফুল ইসলাম, দুলাল, আবদুল আজিজ, কাউসার আহমেদ ও বুলবুল আহমেদ। গত রবিবার আবু সাইদের শৌখিন খামার পরিদর্শনে যান সিংড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এম এম সামিরুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) রকিবুল হাসান, উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা এস এম খুরসিদ আলম, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আল-আমিন সরকার।

খামারি আবু সাইদ জানান, একসময় শুধু শখের বসে পালন করা গেলেও এখন বাণিজ্যিকভাবে এ কবুতর পালন করা সম্ভব। বেকার যুবকরা কবুতর পালন করে স্বনির্ভর হতে পারেন। সব সময় এসব প্রজাতির চাহিদা থাকে। সরকারি সহযোগিতা পেলে কবুতর রপ্তানি করে বছরে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব। কবুতরের অসুখ হলে তিনি নিজেই চিকিৎসা করেন। ছোটবেলায় শখের বসে কবুতর পালন করতেন, সেই শখ এখন পেশায় রূপ নিয়েছে। 
উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা এস এম খুরসিদ আলম বলেন, ‘আবু সাইদ একজন সফল খামারি। আমি তাঁর খামার পরিদর্শন করেছি, খুবই ভালো লেগেছে। এ ছাড়া এ উপজেলায় শতাধিক কবুতর খামারি রয়েছেন। তাদের আমরা পরামর্শ দিয়ে থাকি। খামারিরা চাইলে আমরা সকল প্রকার পরামর্শ ও সহযোগিতা করতে আগ্রহী।’ 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এম এম সামিরুল ইসলাম বলেন, ‘আমি নিজেও একজন কবুতরপ্রেমী। ২০০০ সাল থেকে কবুতর পালন করি। আবু সাইদের খামার দেখে আমি মুগ্ধ। এটি সিংড়া উপজেলার সবচেয়ে বড় কবুতর খামার। বর্তমানে কবুতর পালন অপার সম্ভাবনার। এর মাধ্যমে বেকারত্ব দূর করা যায়।’

শেয়ার করুন