২১ মে ২০২২, শনিবার, ০৬:২২:০৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
গোয়াইনঘাট উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম আম্বিয়া কয়েছ এর পক্ষ থেকে ঈদ শুভেচ্ছা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবিরের ঈদ শুভেচ্ছা বাণী লুটপাট আর স্বার্থ হাসিলে ব্যস্ত চেয়ারম্যান আঃ রশিদ সওদাগর সংযোগ সড়ক না থাকায় কাজে আসছে না সেতুগুলো ইউক্রেন যুদ্ধের মধ্যেই রাশিয়ার ‘বন্ধু’ দেশকে ‘গোপনে’ এইচকিউ-২২ মিসাইল দিল চীন জাপানে আট দশক ধরে ইসলামের আলো ছড়াচ্ছে কোবের মসজিদ ২০৩০ সালে দুইবার আসবে পবিত্র রমজান গোতাবায়ার কার্যালয়ের সামনে স্থায়ী তাবু গেড়েছে বিক্ষোভকারীরা! জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর পূর্ণাঙ্গ ভাষণ মেডিকেলে চান্স পাওয়া সেই শিক্ষার্থীর দায়িত্ব নিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান


রংপুরে গলদা চিংড়ি চাষ সম্ভাবনার দুয়ার খুলেছে
ভোরের ধ্বনি অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট করা হয়েছে : ০১-১১-২০২১
রংপুরে গলদা চিংড়ি চাষ সম্ভাবনার দুয়ার খুলেছে


রংপুরে গলদা চিংড়ি চাষ সম্ভাবনার দুয়ার খুলেছে। গলদা চিংড়ি নোনা পানির মাছ এ ধারণা পাল্টে দিয়ে রংপুর বিভাগের ৪টি সরকারি খামারে উৎপাদন হচ্ছে এই মাছের পোনা। এসব পোনা থেকে বছরে প্রায় ৭ কোটি টাকার মাছ পাওয়া যাচ্ছে।

রংপুর বিভাগীয় মৎস্য অফিস সূত্রে জানা গেছে, রংপুর বিভাগে গলাদা চিংড়ি চাষে ব্যাপক সাফল্যের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার শঠিবাড়ি, দিনাজপুরের পার্বতীপুর-বীরগঞ্জ উপজেলা ও কুড়িগ্রাম সদরে গলদা চিংড়ির পোনা উৎপাদনে খামার রয়েছে। এই মাছ চাষে মৎস্য চাষিদের ব্যাপক আগ্রহ বেড়েছে।

স্থানীয় চাষিরা খামার থেকে পোনা নিয়ে নিজস্ব পুকুরে চাষ করে বাজারে বিক্রি করছেন। গত ২০২০-২১  বছরে চারটি খামারে ১০ লাখ ১৪ হাজার গলদা চিংড়ির পোনা উৎপাদন হয়েছে। মাঠ পর্যায়ে চাষিরা ছোট সাইসের প্রতি পিস পোনা প্রায় ২ টাকা এবং বড় সাইজের পোনা প্রায় ৬ টাকা দরে ক্রয় করছেন খামার থেকে। লোনাপানি ও স্বাদুপানির সাথে খাপ খাইয়ে লার্ভা উৎপাদন করা হচ্ছে।

দক্ষিণাঞ্চল থেকে গলদা চিংড়ির মা মাছ এনে লার্ভা সংগ্রহ করে ৩০ থেকে ৩৫ দিনের মধ্যে পোনা (পিএল) উৎপাদন করে চাষি পর্যায়ে দেওয়া হচ্ছে। মৎস্য বিভাগের মতে, প্রতি বছর ৭ কোটি টাকার বেশি গলদা চিংড়ি উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এই অঞ্চলে। তথ্য মতে, স্থানীয় পর্যায়ে এই মাছ বিক্রির পাশাপাশি রাজশাহী বিভাগের বেশ কয়েকটি জেলাতেও এই মাছ বিক্রির জন্য যাচ্ছে।

মৎস্য সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এক সময় মনে করা হতো গলদা চিংড়ি শুধু নোনা পানির মাছ। কিন্তু সে ধারণা পাল্টে দিয়ে মৎস্য বিভাগ রংপুর বিভাগে এই মাছ উৎপাদন করছেন। এর প্রসার ঘটিয়ে বিদেশে রফতানি করতে পারলে এই অঞ্চলের অর্থনীতির চাকা আরও গতিশীল হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

মৎস্য চাষি সোহরাব হোসেন বলেন, এই মাছ ব্যাপক আকারে চাষ করে বিদেশে পাঠাতে পারলে এই অঞ্চলের অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রভাব পরবে।

রংপুর বিভাগীয় মৎস্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, রংপুর অঞ্চলে গলদা চিংড়ি চাষের উজ্জল সম্ভাবনা রয়েছে। বিভাগের ৪টি খামারে উৎপাদিত ছোট ও বড় সাইজের পোনা মৎস্য চাষিরা নিয়ে নিজেদের পুকুরে চাষ করে ব্যাপক সফলতা পাচ্ছেন। বাণিজ্যিকভাবে এই মাছের উৎপাদন বাড়াতে পারলে এখানকার মাছ বিদেশে রফতানি করা সম্ভব।

শেয়ার করুন