০৪ ডিসেম্বর ২০২১, শনিবার, ১০:১৯:৪১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আপনার খাদ্যাভ্যাসেই চুল হবে সুন্দর লটারি জিতে ভারতের সাংবাদিকদের সংসদে ঢুকতে হচ্ছে টেকনাফে সাড়ে সাত হাজার পিস ইয়াবাসহ রোহিঙ্গা আটক চাঁদাবাজির শীর্ষে ঢাকা সিটি মুগদা সবুজবাগ মিরপুর মোহাম্মদপুরসহ সবখানে বাড়ি করতে দিতে হয় সরকারি দলকে নগদ টাকা নির্মাণসামগ্রী কিনতে হয় তাদের কাছ থেকেই, নেতাদের অভিযোগ করে লাভ হয় না, ভাগ পান সবাই কর্মজীবী বাবা মায়ের শিশুর প্রতি যত্ন টেকনাফে র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ১ ৩১ জানুয়ারির মধ্যে সব নির্বাচন শেষ করবে ইসি নাফনদীতে বিজিবির অভিযানে ৬০ হাজার ইয়াবাসহ আটক ১ মেয়র আব্বাসের বিরুদ্ধে ১০ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ করোনা আরও ৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৬১


ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি নয় : প্রধানমন্ত্রী
ভোরের ধ্বনি অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট করা হয়েছে : ২০-১০-২০২১
ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি নয় : প্রধানমন্ত্রী


আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, অসাম্প্রদায়িক চেতনার বাংলাদেশে সব ধর্মের মানুষ নিজ নিজ ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করবে। ধর্ম নিয়ে যাতে কেউ বাড়াবাড়ি না করে তা নিশ্চিত করা তার সরকারের লক্ষ্য। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন ‘শেখ রাসেল দিবস’ উপলক্ষে গতকাল গণভবন থেকে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভাপতির বক্তব্যে রাখতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক চেতনার দেশ। আমাদের সংবিধানেও সেই নির্দেশনা দেওয়া রয়েছে। আমাদের ইসলাম ধর্মও সেই কথাই বলে। নবী করিম (সা.) বলেছেন, ধর্ম নিয়ে কেউ বাড়াবাড়ি কোরো না। কাজেই সেই বাড়াবাড়ি যেন কেউ না করে এবং এ দেশের সব মানুষ যাতে শান্তিতে বসবাস করতে পারে, সেটাই আমাদের লক্ষ্য।’  এই দেশের শিশুরা যাতে মেধা ও জ্ঞান নিয়ে যথাযথভাবে বিকশিত হওয়ার সুযোগ পায় এবং কাউকে যেন তাঁর ছোট ভাই শেখ রাসেলের মতো নির্মমতার শিকার হতে না হয় সে জন্য সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, দেশের মানুষের জন্য আমরা একটা সুন্দর পরিবেশ রেখে যেতে চাই, যাতে রাসেলের মতো আর কাউকে হারাতে না হয়, এ ধরনের নিষ্ঠুর ঘটনা যেন আর না ঘটে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু এভিনিউ কেন্দ্রীয় কার্যালয় প্রান্তে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন দলের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। গণভবন প্রান্ত থেকে দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক মন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক, অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাবেক মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ দক্ষিণের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু আহমেদ মন্নাফী ও উত্তরের সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি। বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পর দেশে খুনীদের রক্ষায় ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারির কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই হত্যাকান্ডের বিচার করা হবে না বলে আইন করা হলো এ দেশে। বিশ্বে যারা মানবাধিকার নিয়ে কথা বলেন, অনেকে আমাকেও প্রশ্ন করেন- তাদের সেই প্রশ্ন করার কি অধিকার আছে? বাবা-মা-ভাইসহ পরিবারের সদস্যদের হত্যার বিচার চাইতে পারিনি, আমাকে একটি মামলাও করতে দেওয়া হয়নি। তখন তারা কোথায় ছিলেন? তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পর খুনিদের দায়মুক্তি দিতে শুধু আইন করা নয়, খুনিদের রাষ্ট্রদূত বানিয়ে পুরস্কৃত করা, প্রহসনের নির্বাচনে খুনিদের এনে সংসদে বসানোর ঘটনা ঘটেছে। জিয়াউর রহমান ও তাঁর স্ত্রী খালেদা জিয়া এসব কাজ করেছেন। পঁচাত্তর-পরবর্তী হত্যা-ক্যু-ষড়যন্ত্রের রাজনীতি এবং নির্বিচারে সামরিক অফিসার-সৈন্যদের হত্যার ঘটনা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পঁচাত্তরের পর একের পর এক ক্যুর ঘটনা ঘটেছে। তখন অনেকে বলার চেষ্টা করেছে, জিয়ার হাতে নাকি সেনাবাহিনী শক্তিশালী ও সুশৃঙ্খল হয়েছিল! ১৯৭৫ থেকে ১৯৮১ পর্যন্ত দেশে ১৯টি ক্যু হয়েছে। এতে সেনাবাহিনীতে ডিসিপ্লিন ও শক্তিশালী হয় কীভাবে? জিয়াউর রহমান শুধু বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের সঙ্গে শুধু জড়িত ছিলেন না, হাজার হাজার সেনা অফিসার ও সৈন্যকে হত্যা করেছেন। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের হত্যা ও নির্যাতন করেছেন। তাদের মধ্যে কোনো মানবতা ছিল না, এখনো নেই। খালেদা জিয়ার সরকারের সময়ও বঙ্গবন্ধুর খুনিদের পুরস্কৃত ও মদদ দেওয়ার ঘটনা তুলে ধরে সরকারপ্রধান বলেন, আমরা ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার করেছি, রায়ও হয়েছিল। কিন্তু ২০০১ সালে খালেদা জিয়া সরকারে এসে সেই বিচার আবার বন্ধ করে দেন, চাকরিচ্যুত খুনিদের ডেকে এনে পুনর্বহাল ও পদোন্নতি পর্যন্ত দেন এই খালেদা জিয়া। খুনি খায়রুজ্জামানকে পদোন্নতি এবং আরেক খুনি মৃত পাশাকে পদোন্নতি দেন। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা প্রশ্ন রেখে বলেন, খুনিদের প্রতি খালেদা জিয়ার এই যে পক্ষপাতিত্ব, এটার কারণটা কী? কারণটা খুব স্পষ্ট। কারণ খুনি মোশতাকের সঙ্গে জিয়াউর রহমান সম্পূর্ণভাবে এই খুনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ছোট ভাই শেখ রাসেলকে সর্বশেষ হত্যা করা হয়। বলা হয়েছিল, ওই ছোট্ট শিশুটিও যেন না বাঁচে। এই নির্দেশটা কে দিয়েছিল? কারা দিয়েছিল? সব শেষে সব লাশ মাড়িয়ে শেখ রাসেলকে হত্যা করা হলো, সবচেয়ে এটাই বড় কষ্টের। আবেগজড়িত কণ্ঠে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট যেন কারবালার প্রান্তরের মতো ঘটনা ঘটে গেল। কারবালায় শিশু-নারীদের হত্যা করা হয়নি। যে বাঙালি জাতির জন্য বঙ্গবন্ধু আজীবন লড়াই-সংগ্রাম করলেন, বছরের বেশি সময় কারাগারে নির্যাতন সহ্য করলেন, সেই বাঙালির হাতেই বঙ্গবন্ধু সপরিবারে জীবন দিতে হলো। মাত্র ১০ বছরের শিশু রাসেলকেও চলে যেতে হলো ঘাতকের নির্মম বুলেটের আঘাতে। তিনি বলেন, রাসেলের যখন জন্ম হয় তখন বাবা (বঙ্গবন্ধু) চট্টগ্রামে রাজনৈতিক কর্মকান্ডে ব্যস্ত ছিলেন। সেখানেই তাঁকে রাসেলের জন্মের কথা জানানো হয়। আমার হাত ধরেই রাসেল হাঁটতে শেখে। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর দু চোখ দিয়ে ঝরছিল সব হারানোর বুকে জমাট বেঁধে থাকা তীব্র ব্যথা-বেদনার অশ্রু। কণ্ঠ দিয়েও কিছু সময় কথা বের হচ্ছিল না। এমন পিনপতন নীরবতায় নিজেকে সামলে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের বড় চার ভাই-বোনেরও শেখ রাসেল ছিল অত্যন্ত আদরের, কিন্তু বাবার ¯েœহ থেকে বঞ্চিত। দিনের পর দিন বঙ্গবন্ধু কারাগারে বন্দী থাকায় শিশু অবুঝ রাসেলের মনের কষ্টের কথা স্মৃতিচারণা করতে গিয়ে বড় বোন শেখ হাসিনা বলেন, কারাগার থেকে বঙ্গবন্ধু যখন মুক্তি পেতেন, তখন শেখ রাসেল কোনোভাবেই বাবাকে চোখের আড়াল করতে চাইত না। খেলাধুলা বা পড়ার টেবিল থেকে কয়েক মিনিট পর পরই বাবার কাছে ছুটে আসত রাসেল। মনে তার একটা ভয় ছিল, বাবা আছে কি না। কারাগারে গেলেও বাবাকে সঙ্গে নিয়ে আসতে চাইত। বাড়িতে ফিরে সারা রাত ঘুমাত না, কাঁদত। এমন কষ্ট নিয়েই বড় হচ্ছিল আমার ছোট ভাই শেখ রাসেল। সেই রাসেলকে ঘাতকরা বাবা-মা-ভাইদের লাশ মাড়িয়ে নিয়ে গিয়ে সব শেষে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করল! প্রধানমন্ত্রী বলেন, যখন বিরোধী দলে ছিলাম তখনো চেষ্টা করেছি, এখনো চেষ্টা করে যাচ্ছি যাতে এই দেশের শিশুরা তাদের লেখাপড়া, তাদের চিকিৎসাব্যবস্থা, তারা যেন নিয়মিত স্কুলে যেতে পারে। আজকে যেমন আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ করেছি, সেই ডিজিটাল বাংলাদেশ, সেটি তৈরি করার জন্য তাদের প্রস্তুত করা, তাদের ট্রেনিং দেওয়া, সব রকম ব্যবস্থা করে দিচ্ছি।

সরকারপ্রধান আরও বলেন, শিশুর নিরাপত্তা, শিশু অধিকার আইন তো জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ১৯৭৪ সালে করে দিয়ে গেছেন। প্রাথমিক শিক্ষাটাকে অবৈতনিক করে দিয়ে গেছেন, বাধ্যতামূলক করে দিয়ে গেছেন। কাজেই আমার বাবার আদর্শ নিয়েই আমরা এগিয়ে যাচ্ছি, যাতে আমাদের এই দেশের শিশুরা যেন আর এই নির্মমতার শিকার না হয়।

বিএনপি-জামায়াত জোটের আন্দোলনের নামে অগ্নিসন্ত্রাস, জীবন্ত মানুষকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনা অনুষ্ঠানে তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দুর্ভাগ্য আমাদের, এখনো আমরা সেই নির্মমতা মাঝে মাঝে দেখি। কিন্তু এটা যেন না হয়। দেখেছি, আগুন নিয়ে পুড়িয়ে কীভাবে হত্যা করা হচ্ছে জ্যান্ত মানুষগুলোকে। শিশুকে পর্যন্ত পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। ওই সময় পিতা দেখেছেন নিজের চোখের সামনে আগুনে পুড়ে সন্তান মারা যাচ্ছে। সে রকম নিষ্ঠুর ঘটনা তো বাংলাদেশে ঘটেছে। এটাই হচ্ছে সবচেয়ে দুর্ভাগ্য এই বাংলাদেশের।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি এইটুকু চাইব, এখানে মানবতার প্রশ্ন যারা তোলে, তারা যেন এই ঘটনাগুলো ভালোভাবে দেখে যে বাংলাদেশে কী ঘটল, কী ঘটেছে। কিন্তু আমরা সরকারে আসার পর থেকে আমাদের প্রচেষ্টা, কোনো শিশু রাস্তায় ঘুরে বেড়াবে না, টোকাই থাকবে না। তাদের যেন একটা ঠিকানা থাকে, তারা যেন একটু ভালোভাবে বসবাস করতে পারে।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের একটাই লক্ষ্য যে, এই দেশের প্রতিটি গৃহহীন মানুষ একটা ঘর পাবে। প্রতিটি মানুষ শিক্ষা পাবে। চিকিৎসা পাবে। ভালোভাবে বাঁচবে। প্রতিটি শিশু তার যে মেধা, তার যে জ্ঞান, তার যে বুদ্ধি, সেটা যেন বিকশিত করতে পারে। বাংলাদেশকে তারা যেন সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে। আমরা সেই চেষ্টাই করে যাচ্ছি।

শেয়ার করুন