০৪ ডিসেম্বর ২০২১, শনিবার, ১১:০২:১৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আপনার খাদ্যাভ্যাসেই চুল হবে সুন্দর লটারি জিতে ভারতের সাংবাদিকদের সংসদে ঢুকতে হচ্ছে টেকনাফে সাড়ে সাত হাজার পিস ইয়াবাসহ রোহিঙ্গা আটক চাঁদাবাজির শীর্ষে ঢাকা সিটি মুগদা সবুজবাগ মিরপুর মোহাম্মদপুরসহ সবখানে বাড়ি করতে দিতে হয় সরকারি দলকে নগদ টাকা নির্মাণসামগ্রী কিনতে হয় তাদের কাছ থেকেই, নেতাদের অভিযোগ করে লাভ হয় না, ভাগ পান সবাই কর্মজীবী বাবা মায়ের শিশুর প্রতি যত্ন টেকনাফে র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ১ ৩১ জানুয়ারির মধ্যে সব নির্বাচন শেষ করবে ইসি নাফনদীতে বিজিবির অভিযানে ৬০ হাজার ইয়াবাসহ আটক ১ মেয়র আব্বাসের বিরুদ্ধে ১০ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ করোনা আরও ৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৬১


রংপুরে অপহরণ ও ধর্ষণে অভিযুক্তদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবি
ভোরের ধ্বনি অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট করা হয়েছে : ২৪-০৮-২০২১
রংপুরে অপহরণ ও ধর্ষণে অভিযুক্তদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবি রংপুরে অপহরণ ও ধর্ষণে অভিযুক্তদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবি


দ্বাদশ শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে অপহরণ ও ধর্ষণে অভিযুক্তদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগী।

মঙ্গলবার দুপুরে রংপুর সিটি প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। পুলিশ বলছে, এ বিষয়ে মামলা হয়েছে। আসামিদের ধরার জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।লিখিত বক্তব্যে ওই শিক্ষার্থী জানান, কলেজে যাতায়াতের সময় লালমনিরহাটের মহিষখোচা রসুলপাড়ার আবু জারের ছেলে মনির হোসেন তাকে প্রেমের প্রস্তাব দেয়। পরবর্তীতে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। চলতি মাসের ১১ আগস্ট বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মনির হোসেন ফুসলিয়ে তাকে চট্রগ্রামে নিয়ে যায় এবং সেখানে এক বাড়িতে নিয়ে স্ত্রী পরিচয় দিয়ে ১২ আগস্ট থেকে ১৪ আগস্ট পর্যন্ত একাধিকবার ধর্ষণ করে। এসময় তাকে বিয়ের কথা বললে সে নানা টালবাহানা করে এবং বাড়িতে ফিরে বিয়ে করবে বলে ১৫ আগস্ট রিজার্ভ মাইক্রোবাসে করে লালমনিরহাটের মোস্তফিতে পাঠিয়ে দেয়। পরে মনির হোসেন তার সহযোগী আব্দুল হকের মোবাইল নম্বর দিয়ে বলে তার সঙ্গে যোগাযোগ করলে সে সব ব্যবস্থা করে দেবে।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী আরও জানান, পরদিন ১৬ আগস্ট মোস্তফিতে নেমে আব্দুল হকের সাথে যোগাযোগ করে মহিষখোচা চৌধুরী বাজার এলাকায় তার বাড়িতে যান তিনি।  বাড়িতে  গেলে পালিয়ে যায় আব্দুল হক। পরবর্তীতে নিরুপায় হয়ে ভুক্তভোগী লালমনিরহাটের আদিতমারী থানায় এ ব্যাপারে গত ১৯ আগস্ট একটি মামলা দায়ের করেন। 

এখন পর্যন্ত পুলিশ কোনও আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি। প্রতারক মনির হোসেন মামলা তুলে নেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টিসহ নানাভাবে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর বাবাসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আদিতমারী থানার ওসি সাইফুল ইসলাম বলেন, ভুক্তভোগীর ডাক্তারি পরীক্ষা হয়েছে। মামলার দুই আসামির অবস্থান নিশ্চিতে পুলিশ কাজ করছে। আশা করি খুব দ্রুত তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব হবে।

শেয়ার করুন