২১ মে ২০২২, শনিবার, ০৬:৪২:২৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
গোয়াইনঘাট উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম আম্বিয়া কয়েছ এর পক্ষ থেকে ঈদ শুভেচ্ছা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবিরের ঈদ শুভেচ্ছা বাণী লুটপাট আর স্বার্থ হাসিলে ব্যস্ত চেয়ারম্যান আঃ রশিদ সওদাগর সংযোগ সড়ক না থাকায় কাজে আসছে না সেতুগুলো ইউক্রেন যুদ্ধের মধ্যেই রাশিয়ার ‘বন্ধু’ দেশকে ‘গোপনে’ এইচকিউ-২২ মিসাইল দিল চীন জাপানে আট দশক ধরে ইসলামের আলো ছড়াচ্ছে কোবের মসজিদ ২০৩০ সালে দুইবার আসবে পবিত্র রমজান গোতাবায়ার কার্যালয়ের সামনে স্থায়ী তাবু গেড়েছে বিক্ষোভকারীরা! জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর পূর্ণাঙ্গ ভাষণ মেডিকেলে চান্স পাওয়া সেই শিক্ষার্থীর দায়িত্ব নিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান


রংপুরে অপহরণ ও ধর্ষণে অভিযুক্তদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবি
ভোরের ধ্বনি অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট করা হয়েছে : ২৪-০৮-২০২১
রংপুরে অপহরণ ও ধর্ষণে অভিযুক্তদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবি রংপুরে অপহরণ ও ধর্ষণে অভিযুক্তদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবি


দ্বাদশ শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে অপহরণ ও ধর্ষণে অভিযুক্তদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগী।

মঙ্গলবার দুপুরে রংপুর সিটি প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। পুলিশ বলছে, এ বিষয়ে মামলা হয়েছে। আসামিদের ধরার জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।লিখিত বক্তব্যে ওই শিক্ষার্থী জানান, কলেজে যাতায়াতের সময় লালমনিরহাটের মহিষখোচা রসুলপাড়ার আবু জারের ছেলে মনির হোসেন তাকে প্রেমের প্রস্তাব দেয়। পরবর্তীতে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। চলতি মাসের ১১ আগস্ট বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মনির হোসেন ফুসলিয়ে তাকে চট্রগ্রামে নিয়ে যায় এবং সেখানে এক বাড়িতে নিয়ে স্ত্রী পরিচয় দিয়ে ১২ আগস্ট থেকে ১৪ আগস্ট পর্যন্ত একাধিকবার ধর্ষণ করে। এসময় তাকে বিয়ের কথা বললে সে নানা টালবাহানা করে এবং বাড়িতে ফিরে বিয়ে করবে বলে ১৫ আগস্ট রিজার্ভ মাইক্রোবাসে করে লালমনিরহাটের মোস্তফিতে পাঠিয়ে দেয়। পরে মনির হোসেন তার সহযোগী আব্দুল হকের মোবাইল নম্বর দিয়ে বলে তার সঙ্গে যোগাযোগ করলে সে সব ব্যবস্থা করে দেবে।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী আরও জানান, পরদিন ১৬ আগস্ট মোস্তফিতে নেমে আব্দুল হকের সাথে যোগাযোগ করে মহিষখোচা চৌধুরী বাজার এলাকায় তার বাড়িতে যান তিনি।  বাড়িতে  গেলে পালিয়ে যায় আব্দুল হক। পরবর্তীতে নিরুপায় হয়ে ভুক্তভোগী লালমনিরহাটের আদিতমারী থানায় এ ব্যাপারে গত ১৯ আগস্ট একটি মামলা দায়ের করেন। 

এখন পর্যন্ত পুলিশ কোনও আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি। প্রতারক মনির হোসেন মামলা তুলে নেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টিসহ নানাভাবে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর বাবাসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আদিতমারী থানার ওসি সাইফুল ইসলাম বলেন, ভুক্তভোগীর ডাক্তারি পরীক্ষা হয়েছে। মামলার দুই আসামির অবস্থান নিশ্চিতে পুলিশ কাজ করছে। আশা করি খুব দ্রুত তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব হবে।

শেয়ার করুন